Vromon Blog

Tour Site

অপার সৌন্দর্যের লিলাভূমি সেন্ট মার্টিন। বাংলাদেশের সমুদ্র সীমানার ৯ কিলোমিটার ভিতরে দক্ষিণ-পূর্ব কোণে অবস্থান সেন্ট মার্টিন বা প্রবাল দ্বীপ।ধারনা করা হয় আরব বণিকেরা প্রথম দ্বীপটি আবিষ্কার করে তবে এর সুস্পস্ট প্রমান পাওয়া যায় না।।দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার বণিকেরা আসা যাওয়ার সময় দ্বীপটি বিস্রামের জন্য ব্যাবহার করত , এবং তৃষ্না নিবারনের জন্য প্রচুর নারিকেল গাছ রুপন করেছিল।সেন্ট মার্টিন নারিকেল জিনজিরা নামেও বেশ পরিচিত কেউ কেউ আবার দারুচিনি দ্বীপ নামেও চেনে। সেন্ট মার্টিনের আয়তন ৮ বর্গ কিলোমিটার বা ১৯৭৭ একর তবে জোয়ার ভাটার সময় কম বেশি হতে পারে।ভ্রমন পিপাসুদের জন্য সেন্টমার্টিন একটি আকর্ষনিয় স্থান।নীল জলরাশির বুকে সবুজের সমারুহ কার না ভাল লাগে।একাকিত্ব গোচাতে ঘুরে আসতে পারেন স্বপ্নের সেন্ট মার্টিন নিয়ে যেতে পারেন পরিবার পরিজনও ।সেন্ট মার্টিনের আইন-শৃঙ্খলা অনেক ভাল তাই নিশ্চিন্তে ঘুরে আসতে পারেন স্বপ্নের সেন্ট মার্টিন থেকে। সেন্ট মার্টিনের সৌন্দর্য আপনাকে মুগ্ধকরবেই ।

কি ভাবে যাবেন

কি ভাবে কম খরচে যাবেন :

কম খরচে সেন্ট মার্টিন যেতে চাইলে ট্রেন দিয়ে চট্রগ্রাম গিয়ে টেকনাফ হয়ে যেতে পারেন। তাছাড়া ঢাকা থেকে সরাসরি টেকনাফের বাস পাওয়া যায় ভাড়া হতে পারে ৯০০ থেকে ২০০০ টাকা।নন এসি বাস এস আলম,মডার্ন লাইন, ঈগল ভাড়া হতে পারে ৭০০ থেকে ১০০০ টাকা। টেকনাফ থেকে দৈনিক ৫ টি জাহাজ চলাচল করে সেন্ট মার্টিন।গ্রীন লাইন,এলসি কুতুবদিয়া,কাজল,কেয়ারি সিন্দবাদ জেটি ঘাট থেকে প্রতিদিন সকাল ৯ টায় ছেড়ে যায় এবং ফিরে আসে বিকিাল ৩ টায়। সম্ভাব্য ভাড়া হতে পারে ৫০০ থেকে ১৫০০ টাকা।জাহাজ গুলো সাধারনত নভেম্বর মাস থেকে মার্চ মাস পর্যন্ত চলাচল করে।অন্য সময় যেতে চাইলে ট্রলার বা স্পিডবোর্ড দিয়ে যেতে হবে ভ্রমন হবে ঝুকিপূর্ন ভাড়া হতে পারে জনপ্রতি ২০০ টাকা।খরচ ও সময় বাচাতে সাইকেল ভাড়া করে ঘরতে পারেন ভাড়া হতে পারে ৪০ থেকে ৬০ টাকা প্রতি ঘন্টা।

কি ভাবে বিলাসবহুল ভাবে যাবেন :

কম সময়ে আরাম দায়ক ভাবে যেতে চাইলে ঢাকা থেকে কক্সবাজার বিমানে যেতে পারেন ভাড়া হতে পারে ৩০০০ থেকে ১২০০০ টাকা। কক্সবাজার থেকে এসি বাস গুলোতে টেকনাফ যেতে পারেন আরামদায়ক ভাবে।টেকনাফ থেকে জাহাজ বা ট্রলারে সেন্ট মার্টিন।
ঢাকা থেকে এসি বাস গুলো তে যেতে পারেন টেকনাফ আপানার ভ্রমন হবে কম সময়ে আরামদায়ক ভাড়া হতে পারে ১৫০০ থেকে ২০০০ টাকা।এসি বাস সেন্ট মার্টিন সার্ভিস ভাড়া হতে পারে ১৫০০ থেকে ২০০০ টাকা। টেকনাফ থেকে জাহাজ, ট্রলার বা স্পিডবোর্ড সেন্ট মার্টিন যাওয়ার একমাত্র উপায়।

কি খাবেন

সেন্ট মার্টিনের সকল জিনিস পত্র বাহির থেকে আসে সেজন্য দাম একটু বেশি। সেন্ট মার্টিনে খাবারের কথা আসলেই মুখরুচক সীফুডের কথা সবার আগে আসে। তাছাড়া বিভিন্ন রকম মাছ বারবিকিউ করে খেতে পারেন যা পছন্দ হয়।হাটাচলায় তৃষ্ণা নিবারনের জন্য রয়েছে সুপেয় পানিয় ডাবের ব্যাবস্থা।

কি ভাবে কম খরচে খাবেন :

সেন্ট মার্টিনে কম খরচে খেতে চাইলে আপনাকে অবশ্যই বাজারের ভেতরের হোটেল গুলোতে যেতে হবে ,এবং দরদাম করে ক্রয় করতে হবে।মাছ বারবিকিউ খেতে চাইলে তাজা মাছ ক্রয় করে বারবিকিউ অর্ডার করতে পারেন।তাছাড়া সেন্ট মার্টিনে ছোট ছোট অনেক রেস্টুরেন্ট রয়েছে এবং তাতে সাজানো রয়েছে বাহারি রকমের মুখরুচক খাবার, আপনি আপনার পছন্দ মত অডৃার করে খেতে পারেন তবে দর-দাম করে নেয়া ভাল।

কি ভাবে বিলাসবহুল ভাবে খাবেন :

খাবার দাবারে একটু বিলাসীতা চাইলে হোটেল বা রিসোর্টে বসেই খাবার অর্ডার করতে পারেন সকল ব্যাবস্থা তারা করে দেবে তবে এক বেলা আগে তাদের জানাতে হবে।

কি ভাবে কম খরচে থাকবেন

সেন্ট মার্টিনে কম খরচে থাকতে চাইলে বীচ থেকে একটু ভেতরের রিসোর্ট গুলো ভাড়া নিতে পারেন।তাছাড়া কিছু কিছু বাড়ী ভাড়া দিয়ে থাকে সেখানেও থাকতে পারেন কম খরচে। অফ সিজনে সেন্ট মার্টিন যেতে পারেন খরচ অনেক কম হবে।

এই রিসোর্ট গুলো বেছে নিতে পারেন

ড্রিম নাইট রিসোর্ট পশ্চিম বীচে অবস্থিত ভাড়া হতে পারে ১৫০০ থেকে ২৫০০ টাকা যোগাযোগ করতে পারেন ০১৮১২১৫৫০৫০।
লাইট হাউজ রিসোর্ট পশ্চিম বীচে অবস্থিত ভাড়া হতে পারে ১৫০০ থেকে ৩৫০০ টাকা যোগাযোগ করতে পারেন
০১৮১৯০৩৬৩৬৩।
প্রাসাদ প্যারাডাইস উত্তর বীচে বাজারের কাছে অবস্থিত ভাড়া হতে পারে ২০০০ থেকে ৪৫০০ টাকা যোগাযোগ করতে পারেন ০১৭৯৬৮৮০২০৭।
ব্লুমেরিন রিসোর্ট পশ্চিম বীচে অবস্থিত ভাড়া হতে পারে ২০০০ থেকে ৫০০০ টাকা যোগাযোগ করতে পারেন ০১৭১৩৩৯৯০০১।
কোরাল ভিউ রিসোর্ট পূর্ব বীচে অবস্থিত ভাড়া হতে পারে ২০০০ থেকে ৫৫০০০ টাকা যোগাযোগ করতে পারেন ০১৯৮০০০৪৭৭৮।
সায়রি ইকো রিসোর্ট দক্ষিণ বীচে অবস্থিত ভাড়া হতে পারে ১২০০ থেকে ৩০০০ টাকা যোগাযোগ করতে পারেন ০১৬১০৫৫৫৫০০।
নীল দিগন্তে রিসোর্ট দক্ষিণ বীচে অবস্থিত ভাড়া হতে পারে ২০০০ থেকে ৬০০০ টাকা যোগাযোগ করতে পারেন ০১৭৩০০৫১০০৪।

পরামর্শ যে কাজ গুলো করবেন !

সেন্ট মার্টিন-নারিকেল জিনজিরা-দারুচিনি দ্বীপ যে নামেই ডাকুন অত্যান্ত সতর্কতার সাথে ইহার সৌন্দর্য উপভূগ করুন। সাথে মোবাইল বা ক্যামেরার স্পেয়ার ব্যাটারি ও চার্জর রাখুন ।মিনি মাল্টিপ্লাগ রাখতে ভুলবেন না । স্টুরিস্ট পুলিশ বা বিজিবির সহায়তা নিন।ঝামেলায় পরলে জরুরি নাম্বার 999 এ কল করুন।

পরামর্শ যে কাজ গুলো করবেন না !

কোন অবস্থাতে দালালের সরনাপন্ন হবেন না।সাঁতার না জানলে পানিতে নামবেন না।কোন অনৈতিক-অসামাজিক কাজ করবেন না।পলিথন, প্লাস্টিকের বোতল চিপ্স এর খালি পেকেট যেখানে সেখানে ফেলবেন না। পরিবেশের ক্ষতি হয় এমন কাজ করবেন না।

—- আপনার ভ্রমন হোক আনন্দময়। —-

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *