Vromon Blog

Tour Site

বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার মিরপুরে বোটানিক্যাল গার্ডেন বা জাতীয় উদ্ভিদ উদ্যান অবস্থিত। এটি জাতীয় চিড়িয়াখানার পাশেই অবস্থিত। ১৯৬১ সালে প্রায় ২০৮ একর জায়গাজুড়ে বোটানিক্যাল গার্ডেন প্রতিষ্ঠিত করা হয়। এখানে প্রায় ৮০০ প্রজাতির বিভিন্ন বৃক্ষ রয়েছে। এবং এদের মধ্যে রয়েছে ফুল, ফল এবং ঔষধি গাছ।  ২০৮ একর জায়গাটিকে ৫৭ টি সেকশনে ভাগ করা হয়েছে। মোট ৭ টি বিভিন্ন আকারের জলাশয় রয়েছে এর মধ্যে। এখানে প্রায় ১.৫ একর জায়গা জুড়ে মৌসুমি ফুলের বাগান রয়েছে। প্রতিদিন হাজার হাজার দর্শনার্থী আসেন নানান প্রজাতির উদ্ভিদের সমারোহ দেখতে।

পরিদর্শনের সময়সূচী:

মার্চ থেকে নভেম্বর মাস পর্যন্ত প্রতিদিন সকাল নয়টা  থেকে বিকাল পাঁচটা পর্যন্ত বোটানিক্যাল গার্ডেন খোলা থাকে এবং ডিসেম্বর থেকে ফেব্রুয়ারি মাস পর্যন্ত সকাল নয়টা থেকে বিকেল সাড়ে চারটা পর্যন্ত খোলা থাকে।

টিকেট মূল্য:

বোটানিক্যাল গার্ডেনের প্রবেশ মূল্য ২০ টাকা এবং ছোটদের জন্য ৫ টাকা।

কি ভাবে যাবেন:

গাবতলী বাস স্ট্যান্ড থেকে লেগুনা করে বোটানিক্যাল গার্ডেনে সরাসরি যাওয়া যায়। ভাড়া ১০ টাকা। আবার সদরঘাট বাস স্ট্যান্ড থেকে মিরপুর-১ গামী বাসে করে বোটানিক্যাল গার্ডেনে যেতে পারবেন। ভাড়া ২৫ টাকা।

কোথায় থাকবেন:

মিরপুরের কাছাকাছি বেশ কয়েকটি খাকার  হোটেল রয়েছে এদের মধ্যে-

১। গ্রান্ড প্রিন্স হোটেল ঢাকা

ঠিকানা: মিরপুর-১, ঢাকা

ফোন: ০১৭১৮-৯৬২১৫৬

২। হোটেল সিঙ্গাপুর রেসিডেন্সিয়াল

ঠিকানা: মিরপুর রোড, ঢাকা

ফোন: ০১৭০৫-০৫৭১০২

কোথায় খাবেন:

বোটানিক্যাল গার্ডেন এর সামনের দোকানগুলোতে খাবার খেতে পারবেন। তবে এগুলোর দাম কিছুটা বেশি। কম খরচে খেতে চাইলে মিরপুর-১ গোলচত্তরের খাবার হোটেল গুলোতে খাবার খেতে পারেন।

পরামর্শ যে কাজ গুলো করবেন !

বোটানিক্যাল গার্ডেন এর ভেতরের বিভিন্ন উদ্ভিদের সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন করতে পারেন। যেকোনো ধরনের বিব্রতকর পরিস্থিতি এড়িয়ে চলুন। যেখানে সেখানে ময়লা না ফেলে ডাস্টবিন ব্যবহার করুন।

পরামর্শ যে কাজ গুলো করবেন না !

বোটানিক্যাল গার্ডেনের ভেতরে যেকোন ধরনের অসামাজিক কার্যকলাপ থেকে বিরত থাকুন।  অপরিচিত কারও দেওয়া কোন জিনিস খাবেন না। কারো সাথে মারামারি করবেন না।

—- আপনার ভ্রমন হোক আনন্দময়। —-

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *