Vromon Blog

Tour Site

বুড়িগঙ্গা নদীর তীরে বর্তমান পুরান ঢাকার ইসলামপুরে আহসান মঞ্জিল অবস্থিত। এটি ছিল ব্রিটিশ ভারতের উপাধিপ্রাপ্ত ঢাকার নবাব পরিবারের বাসভবন ও সদর কাচারি। আহসান মঞ্জিল ঢাকার অন্যতম শ্রেষ্ঠ স্থাপত্য নিদর্শন। কথিত আছে মোগল আমলে জামালপুর পরগনার জমিদার এনায়েতউল্লাহর রঙমহল ছিল এটি। পরবর্তীতে তাঁর পুত্র শেখ মতিউল্লাহর নিকট ফরাসিরা রঙমহলটি ক্রয় করেন। ১৮৩০ সালে খাজা আলীমুল্লাহ ফরাসিদের কাছ থেকে বাড়িটি ক্রয় করেন। খাজা আব্দুল গনি বাড়িটিকে প্রয়োজনীয় সংস্কার করে নিজেদের বাসভবনে পরিণত করেন। মূলত আহসান মঞ্জিল এর নির্মাণকাজ ১৮৫৯ সালে শুরু হয় ১৮৭২ সালে শেষ হয়।  আহসান মঞ্জিল এর নাম তার পুত্র খাজা আহসানুল্লাহ নাম অনুসারে রাখা হয়েছে । পরবর্তীতে  ভবনটিকে একাধিকবার সংস্কার করা হয়েছে। মার্বেল পাথর দিয়ে এই ভবনের মেঝে ও বারান্দা তৈরি করা হয়েছে। ইট পাথরের তৈরী এই ভবনটি প্রত্যেকটি কক্ষ অষ্টকোণ বিশিষ্ট ও ছাদ কাঠের তৈরি। আহসান মঞ্জিল এর অভ্যন্তরে দুটি অংশ আছে পূর্ব অংশে আছে বৈঠকখানা ও পাঠাগার এবং পশ্চিম অংশে আছে নাচঘর ও অন্যান্য আবাসিক কক্ষ। আহসান মঞ্জিলের সামনে রয়েছে চমৎকার ফুলের বাগান সবুজ মাঠ। আহসান মঞ্জিল বর্তমানে জাদুঘর হিসেবে সংরক্ষিত আছে। জাদুঘরটিকে ১৯৯২ সালে জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়। সর্বমোট ৩১ টি কক্ষের ২৩ টিতে ৪০৭৭ টি নিদর্শন সংরক্ষিত আছে। প্রতিবছর বহু দেশি-বিদেশি পর্যটক এখানে পরিদর্শন করতে আসে।

পরিদর্শনের সময়সূচী:

শনিবার থেকে বুধবার আহসান মঞ্জিল সকাল ১০ টা ৩০ মিনিট থেকে বিকাল ৫ টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত খোলা থাকে। বৃহস্পতিবার আহসান মঞ্জিল বন্ধ থাকে। শুক্রবার বিকাল ৩ টা থেকে রাত ৮ টা পর্যন্ত খোলা থাকে।

টিকেট মূল্য:

প্রাপ্তবয়স্ক বাংলাদেশী দর্শনার্থীদের প্রবেশ মূল্য ৫ টাকা। ১২ বছরের নিচের শিশুদের জন্য ২ টাকা। সার্কভুক্ত  দেশগুলির পর্যটকদের প্রবেশ মূল্য ৫ টাকা এবং অন্যান্য বিদেশীদের জন্য ৭৫ টাকা। প্রতিবন্ধীদের জন্য টিকেটের  প্রয়োজন হয় না। ছাত্রছাত্রীরা বিনা মূল্যে পরিদর্শন করতে পারবে তবে আগে থেকেই আবেদন করতে হবে।

কি ভাবে যাবেন:

ঢাকার গুলিস্তান থেকে রিক্সায় সরাসরি আহসান মঞ্জিলে যেতে পারবেন। রিকশা ভাড়া ২০-৪০ টাকা।

কোথায় থাকবেন:

আহসান মঞ্জিল এর আশেপাশে বেশ কয়েকটি আবাসিক হোটেল রয়েছে এদের মধ্যে-

১। মদিনা হোটেল

ঠিকানা: ইসলামপুর ঢাকা-১১০০

২। হোটেল গোল্ডেন পিক

ঠিকানা: ৪,২ অয়াইজ ঘাট রোড, ঢাকা-১১০০

ফোন: ০১৯৭১-২২০৩৬৭

৩। হোটেল মহল

ঠিকানা: সৈয়দ হাসান লেন, ঢাকা

ফোন: ০১৭১৮-৫৬৮০৪৮

৪। অয়াইজ ঘাট বোট হোটেল

ঠিকানা: অয়াইজ ঘাট, ঢাকা-১১০০

কোথায় খাবেন:

পুরান ঢাকা খাবারের জন্য বিখ্যাত। তাই খাবারের জন্যে আপনাকে বেশি চিন্তা করতে হবে না। ছোট-বড় অসংখ্য হোটেল ও রেষ্টুরেন্ট পাবেন ইসলামপুরের আশেপাশে। পুরান ঢাকা কে বিরিয়ানির শহর বললে ভুল হবে না। নাজিরা বাজারের হাজীর বিরিয়ানি, নান্নার বিরিয়ানি, নবাবপুর রোডে হোহোটেল স্টারের খাসির লেগ, চিংড়ি ও ফালুদা। হোটেল আল রাজ্জাক এর কাচ্চি, তাঁতীবাজারের কাশ্মীরের কাঁচি, নাজিরা বাজার মোড়ে বিসমিল্লার বটি কাবাব আর গুরদার ইত্যাদি খাবারের জন্য বিখ্যাত।

পরামর্শ যে কাজ গুলো করবেন !

জাদুঘর আমাদের ইতিহাস কে বহন করে সুতরাং পর্যাপ্ত জ্ঞান অর্জন করে আহসান মঞ্জিলে পরিদর্শন করতে যাবেন। জরুরী প্রয়োজনে ৯৯৯ কল করুন।

পরামর্শ যে কাজ গুলো করবেন না !

জাদুঘরের নিদর্শন এর কোনরূপ ক্ষতিসাধন করবেন না। অপরিচিত কোন মানুষের দেওয়া কিছু খাবেন না। কারো সাথে বিতর্কে বা ঝগড়ায় জড়াবেন না।

—- আপনার ভ্রমন হোক আনন্দময়। —-

One thought on “আহসান মঞ্জিল (Ahsan Manzil)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *